fbpx
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৯ অপরাহ্ন

শিশুর বিরুদ্ধে মামলা। ১০ মাসের শিশুকে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ ।

রিপোটারের নাম / ৪০২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ মে, ২০২১
শিশুর বিরুদ্ধে মামলা
শিশুর বিরুদ্ধে মামলা

81 / 100

আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজকে আপনাদের জানাবো শিশুর বিরুদ্ধে মামলা। কিভাবে ১০ মাসের শিশুকে  চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ ।পুলিশের বিরুদ্ধে টাকা দাবির অভিযোগ প্রায় ই উঠে থাকে। তবে এবার যা ঘটেছে তাতে হতভাগ ক্ষুদে পুলিশবাহিনী।

অভিযোগ উঠেছে বিবাদীর কাছ থেকে টাকা না পেয়ে মিরপুর মডেল থানার এসআই মারুফুল মারামারি আর চুরির মামলার চার্জশিট দিয়েছে মাত্র ১০ মাসের শিশুর বিরুদ্ধে।

শিশুর বিরুদ্ধে মামলা

তবে এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে।

মোঃ রুবেল বয়স দশ মাস। বাবা মার সাথে থাকে রাজধানীর মধ্য পাইকপাড়ায়। এখনো হাঁটতে শেখেনি সে। হঠাৎ রুবেলের বাবা-মা জানতে পারলেন তার ১০ মাসের শিশুর বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে মিরপুর মডেল থানার এসআই মারুফুল ইসলাম। অনুযায়ী কারো বিরুদ্ধে পুলিশ আদালতে চার্জশিট তাকে আদালতে হাজির করাতে হয়।

শিশুর বিরুদ্ধে মামলা

শিশুর বিরুদ্ধে মামলা

১০ মাসের রুবেল ও মায়ের কোলে চড়ে গত ৩০ এপ্রিল আদালতে হাজির হয়। এমন আসামিকে দেখে আইনজীবী ও আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হতবাক হয়ে যান। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মারুফুল ইসলাম কে হাজিরের নির্দেশ দেন আদালত।

 

শুধু তাই নয় একই মামলায় আরিফুর রহমান নামে একজন মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছে এ পুলিশ। ঘটনার তিন বছর আগে মারা গেলেও মারামারি ও চুরির মামলায় মৃত ছেলের নাম দেখে বিস্মিত বাবা।শিশুর বিরুদ্ধে মামলা।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায় ২০১৭ সালের ২৬ জুন বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ ভাঙচুর ও চুরির অভিযোগে নতুন মডেল থানায় একটি মামলা করেন জনৈক হাবিবুর রহমান।

 

মামলা তদন্তের দায়িত্ব পুলিশ তদন্ত শেষে ১০ মাসের রুবেল মৃত আরিফুর রহমান সহ ২৩ জনকে আসামি করে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি আদালতে চার্জশিট জমা দেন। তিনি অথচ মামলার বিবরণে দেয়া ঘটনার সময়ে রুবেলের বয়স ছিল ২২ দিন।

মামলা তদন্তের সময় ঘটনাস্থল আসামিদের কাছে পুলিশকে ছিল কিনা এমন প্রশ্ন ছিল রুবেলের বাবার । ওনি কোন ধরনের তদন্তের আসে না। ওনি শুধু আমাদেরকে বলতো ওনাকে টাকা দিতে।শিশুর বিরুদ্ধে মামলা।

 

মারুফুল ইসলাম এর সাথে কথা বলতে মিরপুর মডেল থানায় গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। মামলার তদন্ত শেষে এমন চার্জশিট দিয়েছে খোদ মামলার বাদী হাবিবুর রহমান নিজেই অবাক হয়েছেন। কোন দুধের শিশুকে আসামি করেননি বলে দাবি করেন তিনি। বাচ্চা সম্বন্ধে আমার কোনরকম ধারণাই। আমি কোনো অভিযোগ করিনা। আরিফুর রহমান যে মৃত সেটা আমি জানতাম না।শিশুর বিরুদ্ধে মামলা।

 

এই নিস্পাপ শিশু দুনিয়ার কিছু বুঝে ওঠার আগেই এমন একটি মামলায় অভিযুক্ত হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তার মা। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।মামলার তদন্তে গাফিলতি প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গণমাধ্যম শাখার উপ-কমিশনার। সত্যতা পাওয়ার প্রেক্ষিতে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত অপরাধ তদন্ত করা হচ্ছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

 

যেনা করার পর তাকে বিয়ে করলে কি হয়?

ড্রেসিং করা মুরগি হালাল না হারাম ?

ফেসবুকে যুক্ত হউন


আপনার মতামত লিখুন :

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ